মঙ্গলবার ২১ নভেম্বর ২০১৭, ০২:০৩:২৪

প্রকাশিত : শুক্রবার, ২৬ মে ২০১৭ ১২:০৩:৩৬ পূর্বাহ্ন Zoom In Zoom Out No icon

জবানবন্দি শেষে কারাগারে নাঈম আশরাফ

নিজস্ব প্রতিবেদক: 

রাজধানীর বনানীতে দ্য রেইন ট্রি হোটেলে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই শিক্ষার্থীকে ধর্ষণের মামলার অন্যতম আসামি নাঈম আশরাফের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি গ্রহণ শেষে তাকে কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত।

সাত দিনের রিমান্ড শেষে নাঈম আশরাফকে বৃহস্পতিবার আদালতে হাজির করেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা নারী সহায়তা ও তদন্ত বিভাগের পুলিশ পরিদর্শক ইসমত আরা এমি। নাঈম আশরাফ স্বেচ্ছায় জবানবন্দি দিতে সম্মত হওয়ায় তার স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি রেকর্ডের আবেদন করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ভিকটিম সাপোর্ট সেন্টারের এই পুলিশ পরিদর্শক। আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ঢাকা মহানগর হাকিম সত্যব্রত শিকদারের আদালত তার জবানবন্দি রেকর্ড করেন।

ঢাকা মহানগর হাকিম সত্যব্রত শিকদারের আদালতে বেলা ১১টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত জবানবন্দি দেন নাঈম আশরাফ। জবানবন্দি রেকর্ড শেষে তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন আদালত।

গত ১৭ মে মুন্সিগঞ্জের লৌহজং থেকে নাঈম আশরাফকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারের পর তাকে সাতদিনের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। রিমান্ড শেষে আজ তাকে আদালতে হাজির করা হয়েছে।

এছাড়া ১১ মে সিলেট থেকে এ মামলার প্রধান আসামি সাফাত আহমেদসহ দুজনকে গ্রেফতার করা হয়। এর চারদিন পর ১৫ মে রাজধানীর নবাবপুর ও গুলশান-১ থেকে গ্রেফতার হন মামলার অপর দুই আসামি সাফাতের গাড়িচালক বিল্লাল ও দেহরক্ষী আজাদকে (রহমত)।

ওই ঘটনায় সাফাত আহমেদ ও সাদমান সাকিফ গত ১৮ মে আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। সাফাতের গাড়িচালক বিল্লাল হোসেনও আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। আর সাফাতের দেহরক্ষি রহমত আলী রিমান্ড শেষে কারাগারে রয়েছেন।

প্রসঙ্গত, ২৮ মার্চ বন্ধুর সঙ্গে জন্মদিনের অনুষ্ঠানে গিয়ে বনানীর ‘দ্য রেইন ট্রি’ হোটেলে ধর্ষণের শিকার হন দুই বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া তরুণী। ওই ঘটনার প্রায় ৪০ দিন পর গত ৬ মে বনানী থানায় অভিযুক্ত সাফাত আহমেদ, নাঈম আশরাফ ও সাদমান সাকিফসহ পাঁচজনের বিরুদ্ধে মামলা করেন তারা।

নাঈম আশরাফ নিজেকে আওয়ামী লীগ নেতার ছেলের বন্ধু বলে পরিচয় দিয়ে থাকেন। তার গ্রামের বাড়ি সিরাজগঞ্জে। তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন সময় প্রতারণার অভিযোগ রয়েছে। তার আসল নাম মো. আব্দুল হালিম।

সংবাদটি পঠিতঃ ১২৮ বার