মঙ্গলবার ২১ নভেম্বর ২০১৭, ০১:৫৬:৪৬

প্রকাশিত : বুধবার, ০৭ জুন ২০১৭ ১০:৩২:৩১ অপরাহ্ন Zoom In Zoom Out No icon

নোটিশ ছাড়া বাড়ি উচ্ছেদ বে-আইনি: মওদুদ

নিজস্ব প্রতিবেদক: 

গুলশানের বাড়িতে রাজউকের উচ্ছেদ অভিযান চালানোকে অবৈধ দাবি করেছেন বিএনপি নেতা মওদুদ আহমদ। তিনি বলেছেন, বিনা নোটিশে এই অভিযান চালানো যায় না। উচ্চ আদালত তার বাড়িটির দখল অবৈধ ঘোষণা করলেও তিনি বলেছেন, সরকার তার বাড়িটি নিয়ে গেছে।

বাড়ির দখল অবৈধ ঘোষণা করেছে আদালত। তাহলে সরকার নিয়ে গেল বলছেন কেন- এমন প্রশ্নে মওদুদ আহমদ বলেন, ‘কোনো ধরণের নোটিশ ছাড়া এইভাবে বাড়ি উচ্ছেদ করা বে আইনি, আইনের সুস্পষ্ট লঙ্ঘন। তারা আমাকে নোটিশ দিতে পারত। একটি আইনি প্রক্রিয়া মেনে করতে পারত। বলতে পারত এই সময়ের বাড়ি ছাড়তে হবে। না ছাড়লে উচ্ছেদ করতে পারত। কিন্তু সেটা না হরে হঠাৎ করে যেভাবে করলো এটা বে আইনি।

গত তিন দশক ধরে গুলশান-২ এর ১৫৯ নম্বর প্লটের বাড়িতে বসবাস করছেন মওদুদ। তার ভাইয়ের নামে জমিটির নামজারি করা হয়েছিল। এক বিঘা ১৩ কাঠা জমির ওপর ওই বাড়ি অবৈধভাবে দখল ও আত্মসাতের অভিযোগে ২০১৩ সালের ১৭ ডিসেম্বর গুলশান থানায় মওদুদ ও তার ভাইয়ের বিরুদ্ধে এই মামলা করেন দুদকের উপ-পরিচালক হারুনুর রশীদ।

মওদুদ বাড়িটি অবৈধভাবে দখল করেছেন-উচ্চ আদালত এই রায় দেয়ার পর রায়ের বিরুদ্ধে রিভিউ আবেদন করেন মওদুদ। ৪ জুন আপিল বিভাগ মওদুদের রিভিও আবেদন খারিজ করে দেয়। সেদিনই অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম জানান, মওদুদকে এই বাড়ি ছাড়তে হবে।

আর আপিল বিভাগের রায়ের তিন দিন পর বুধবার দুপুরে রাজউকের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে এই উচ্ছেদ অভিযান শুরু হয়।

যখন এই অভিযান শুরু হয় তখন মওদুদ আহমদ ছিলেন আদালতে। রাজউকের অভিযান শুরুর খবরে তিনি তাৎক্ষণিকভাবে গুলশানে ছুটে যান। এ সময় এসময় টেলিফোনে কথা বলেন তিনি।

মওদুদ বলেন, ‘দেখ সরকার আমার বাড়িটা নিয়ে গেল।’ কথা বলার সময় অপরপ্রান্তে তাকে খুব চিন্তিত লাগছিল।

বিএনপি নেতা আরও বলেন, ‘বিরোধী দলের রাজনীতি করি বলে প্রতিহিংসা থেকে এই উচ্ছেদ চালাচ্ছে সরকার। এটা নোংরা রাজনীতি।

পরে বাড়িতে গিয়ে সাংবাদিকদের কাছে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানান মওদুদ। তিনি বলেন, তাদের কোনো অর্ডার আছে যে একজনের রুমে ঢুকে গেল? দেশে কি কোনো আইন নেই?

এক প্রশ্নের জবারে মওদুদ বলেন, কে বলেছে এটা সরকারি সমপত্তি? এটা রাষ্ট্রীয় সম্পত্তি নয়। সুপ্রিম কোর্ট বলে দিয়েছে এটা রাষ্ট্রীয় সম্পত্তি নয়।

গুলশানের সেই বাড়িটির প্রকৃত মালিক ছিলেন পাকিস্তানি নাগরিক মো. এহসান। ১৯৬০ সালে তৎকালীন ডিআইটির কাছ থেকে এই বাড়ির মালিকানা এহসান পান। ১৯৬৫ সালে বাড়ির মালিকানার কাগজপত্র এহসানের স্ত্রী অস্ট্রিয়ার নাগরিক ইনজে মারিয়া প্লাজের নামে নিবন্ধন করা হয়।

১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধ শুরু হলে এহসান স্ত্রীসহ ঢাকা ত্যাগ করেন। তারা আর ফিরে না আসায় ১৯৭২ সালে এটি পরিত্যক্ত সম্পত্তির তালিকাভুক্ত হয়। ওই বছরই মওদুদ ওই বাড়ির দখল নেন। এরপর ১৯৭৩ সালের ২ অগাস্ট তারিখে মওদুদ ইনজে মারিয়া প্লাজের নামে একটি ‘ভুয়া’ আমমোক্তারনামা তৈরি করান এবং নিজেকে তার ভাড়াটিয়া হিসেবে দেখিয়ে ওই বাড়িতে বসবাস করতে থাকেন।

দুদকের মামলায় বলা হয়, জিয়া সরকারের উপ প্রধানমন্ত্রী থাকাকালে মওদুদ প্রভাব খাটিয়ে বাড়িটি পরিত্যক্ত সম্পত্তির তালিকা থেকে বাদ দেওয়ার চেষ্টা করেন। এর ধারাবাহিকতায় ১০০ টাকা মূল্য দেখিয়ে ১৯৮০ সালে প্লটটি তিনি বরাদ্দ নেন।

সংবাদটি পঠিতঃ ১৫৮ বার