মঙ্গলবার ২১ নভেম্বর ২০১৭, ০১:৫৫:১৬

প্রকাশিত : মঙ্গলবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৭ ১১:৫৫:৫৪ পূর্বাহ্ন Zoom In Zoom Out No icon

ব্যবসার কথা বলে মালয়েশিয়া প্রবাসীর অর্থ আত্মসাৎ

মালয়েশিয়া প্রতিনিধি

মালয়েশিয়াঃ ব্যবসার কথা বলে মোহাম্মাদ আবদুল আজিজ নামে এক মালয়েশিয়া প্রবাসীর টাকা আত্মসাৎ করা হয়েছে।

জানা যায়- নোয়াখালী সদরের এওজবাড়িয়া গ্রামের মৃত জামাল উদ্দিনের পুত্র মোহাম্মাদ শাওন ইসলাম ২০১৫ সালে মালয়েশিয়া প্রবাসী মোহাম্মাদ আবদুল আজিজকে গবাদি পশু পালন অধিক লাভজনক বলে জানায়। এবং এজন্য সে একটি গবাদিপশুর খামার করতে চায়। এতে অর্থের জোগান দিতে আবদুল আজিজকে অনুরোধ করে।

পূর্ব পরিচিত ও আত্মীয়তার সম্পর্ক থাকায় বেকার শাওনকে কর্মমুখী ও স্বাবলম্বী করার জন্য আবদুল আজিজ এ প্রস্তাবে রাজি হয়।

পরে আবদুল আজিজ নিজ খরচে শাওনকে গবাদি পশুপালন বিষয়ক প্রশিক্ষণ নিতে সাভারের শেখ হাসিনা যুব উন্নয়ন কেন্দ্রে ৩ মাসের ট্রেনিংয়ে পাঠান।

ট্রেনিং শেষে আবদুল আজিজ ব্যাংক এবং ওয়েস্টার্ন ইউনিয়নসহ আরও কয়েকটি মাধ্যমে শাওনকে গবাদিপশুর খামার, গবাদিপশু ক্রয়, কর্মচারী বেতন এবং যাবতীয় খরচের জন্য মোট সাড়ে বারো (১২) লক্ষ টাকা দেন।

খামার করা হলে আবদুল আজিজ খামারে গবাদিপশু দেখাশুনার জন্য নিজের লোক (রাখাল) হাসানকে শাওনের সঙ্গে কাজে লাগান। হাসানের বেতনও পরিশোধ করতেন আবদুল আজিজ।

গত জুলাই মাসে কুরবানির ঈদের আগে শাওন রাখাল হাসানকে বিনা কারণে কাজ থেকে তাড়িয়ে দেন। তার কিছুদিন পর খামারের মূল মালিক আবদুল আজিজকে কিছু না জানিয়ে গরু বিক্রি করে সমুদয় টাকা আত্মসাৎ করেন।

আবদুল আজিজ গরু বিক্রির ঘটনাটি জানতে পেরে শাওনকে চাপ প্রয়োগ করলে শাওন পাঁচ (৫) লক্ষ টাকা ফেরত দেন। বাকি সাড়ে সাত (৭) লক্ষ টাকা নিয়ে গড়িমসি শুরু করেন।

টাকার জন্য আবদুল আজিজ বার বার শাওনকে বললে একপর্যায়ে শাওন টাকার লেনদেনের কথা অস্বীকার করেন। এবং টাকা নিয়ে বেশি বাড়াবাড়ি করলে দেখে নেওয়ার হুমকি দেন। পরে আবদুল আজিজ এ বিষয়ে রাজধানীর ভাষানটেক থানায় একটি সাধারণ (জিডি) করেন।

আবদুল আজিজ জানান, কাউকে সহযোগিতা করলে পরবর্তীতে যদি টাকা আত্মসাৎসহ দেখে নেওয়ার হুমকি আসে তাহলে ভবিষ্যতে মানুষ অন্যকে সহযোগিতা করতে ভয় পাবে।

সংবাদটি পঠিতঃ ২২৪ বার