মিলার বিরুদ্ধে স্বামীকে নির্যাতনের অভিযোগ!
শনিবার ২৫ নভেম্বর ২০১৭, ১২:৩৪:৪৫

প্রকাশিত : বুধবার, ১১ অক্টোবর ২০১৭ ০৯:০০:৫১ অপরাহ্ন Zoom In Zoom Out No icon

মিলার বিরুদ্ধে স্বামীকে নির্যাতনের অভিযোগ!

বিনোদন প্রতিবেদক: 

স্বামীর বিরুদ্ধে শারিরীক নির্যাতন ও মানসিক নির্যাতনসহ ১০ লাখ টাকা যৌতুক দাবির অভিযোগে উত্তরা মডেল থানায় মামলা করেন পপ গায়িকা মিলা। স্বামীর সঙ্গে বিচ্ছেদের ঘোষণাও দেন তিনি। তাঁর দায়েরকৃত মামলায় এখন জেল খাটছে স্বামী বৈমানিক পারভেজ সানজারি। এ ঘটনার প্রেক্ষিতে গত কিছুদিন ধরে সরব ফেসবুকসহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলো। তবে মিলার এ অভিযোগকে অস্বীকার করে উল্টো তাঁর বিরুদ্ধে স্বামীকে নির্যাতনসহ নানা অভিযোগ স্বামী সানজারির পরিবারের। 

এ বিষয়ে সানজারির বাবা-মা কেউ গণমাধ্যমে প্রকাশ্যে কথা বলতে রাজি নন। তবে তাঁর পরিবারের একাধিক সদস্য নাম প্রকাশ না করার শর্তে মুক্তবাণী ডটকমের কাছে তুলে ধরেন নানা তথ্য। তারা বলেন, সানজারি নয় বরং মিলা-ই অকারনে তাঁর স্বামীর উপর শারিরীক ও মানসিক নির্যাতন চালাতো। এবং তঁকে ডিভোর্স দিতে চাপ প্রয়োগ করত। স্বামী তাঁর কাছ থেকে ১০ লাখ টাকা যৌতুক দাবি করেছে এ তথ্য মিথ্যা উল্লেখ করে সানজারির পরিবার থেকে দাবি করা হয় মিলাই ডিভোর্স দেয়ার দাবি করে তাঁর কাবিনের ২৫ লাখ টাকা দেয়ার জন্য সানজারিকে চাপ দেয়। এ সময় মিলা অকারনে চিৎকার চেঁচামেচি ও স্বামীকে মারধোর করত। তাঁর চিৎকার চেঁচামেচিতে আশেপাশের কেউ টিকতে পারতনা। পরিবারের অভিযোগ সবসময় নেশাগ্রস্ত থাকতেন মিলা। তাঁর মানসিক সমস্যাও ছিলো। যার কারণে ডাক্তারও দেখানো হয়েছে তাকে। সবসময় অকারন ঝগড়া করতেন তিনি। 

১৩ বছর মিলা-সানজারি প্রেম করেছেন এমন তথ্যও ভুল বলে উল্লেখ করে বলা হয়, ২০১৪ সালে মিলা আর সানজারির মধ্যে বিয়ে ঠিক হয়। কিন্তু মিলার পরিবারের কারণে এ বিয়ে ভেঙ্গে যায়। এরপর সানজারি মিলার সঙ্গে কোন যোগাযোগ রাখেননি। কিন্তু মিলা একসময় সানজারিকে বিয়ে করার জন্য তাঁর মাকে চাপ দেয়। মিলার পীড়াপীড়িতে আর মায়ের অনুরোধে বিয়ে করে সানজারি। কিন্তু বিয়ের পর মিলার উচ্ছৃঙ্খল জীবন-যাপনে অতিষ্ট সবাই। তাঁর যা ইচ্ছা হতো তা-ই করতো। কেউ তাকে কোন বাধা দিতোনা। সে রাতে বাসার বাইরে থাকতো, ভোর পাঁচটা কিংবা মধ্যরাতে বাসায় ফিরতো। অহেতুক তার স্বামীর সঙ্গে চিৎকার চেঁচামেচি করতো।

সানজারির পারিবারিক সূত্রের দাবি, মিলা নির্যাতনের যে অভিযোগ করেছে তার কোন প্রমাণ নেই। বরং স্বামীকেই তিনি উল্টো নির্যাতন করেছেন। যার ছবি মুক্তবাণী ডটকমের কাছে সরবরাহ করেছে পরিবার।   

মিলা তাঁর স্বামীকে ডিভোর্স দেয়ার কথা বললেও এখনও কোন ডিভোর্সের কাগজপত্র দেয়নি। এ বিষয়ে জানতে মিলার ব্যাক্তিগত মোবাইল নম্বরে ফোন করা হলেও তাঁর সঙ্গে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।  

এর আগে গত শুক্রবার রাতে ফেসবুকে মিলার ভেরিফাইড পেজে এক দীর্ঘ স্ট্যাটাস দেন তিনি। তিনি ফেসবুক স্ট্যাটাসে লেখেন, হ্যাঁ, আমি ডিভোর্স দিয়েছি। পারভেজ সানজারির সঙ্গে ১০ বছর প্রেম করার পর বিয়ে করেছিলাম। বিয়ের মাত্র ১৩ দিনের মাথায় জানতে পারি আমার স্বামী একাধিক নারীর সঙ্গে পরকীয়ার সম্পর্কে জড়িত। আমার স্বামী ক্রমাগত আমার সঙ্গে প্রতারণা করতে থাকে। বিয়ের আগে যখন আমরা ডেটিং করতাম তখনও একাধিক নারীর সঙ্গে সে প্রেম করে এবং বিয়ের পরও তা অব্যাহত রাখে। এতোদিনের সম্পর্কের পরও যে অন্য নারীর সঙ্গে পরকীয়া করে তার সঙ্গে থাকাটা অসম্ভব।

তিনি লেখেন, যে নিজের নতুন স্ত্রীর সঙ্গে এমন প্রতারণা করতে পারে সে কাউকেই পেতে পেরে না। এটা শুধু সেলিব্রেটিদের ক্ষেত্রেই হতে পারে এমনটা নয়। প্রত্যেক স্বামী-স্ত্রীর একে অপরের প্রতি মিনিমাম শ্রদ্ধা থাকা উচিৎ।

একজন মানুষ হিসেবে এমন আচরণ আমি মেনে নিতে পারিনি। কোনো স্বামী তার স্ত্রীর অথবা কোনো স্ত্রী তার স্বামীর পরকীয়া মেনে নিতে পারে না। দশ বছরের সম্পর্কের পর লাইফ পার্টনার বেছে নিয়ে আমি বুঝতে পারলাম যে একজন প্রতারককে বেছে নিয়েছি। আমি আমার সংসার টিকিয়ে রাখার চেষ্টা করেছি। কিন্তু পারিনি। সে আমাদের বিয়েকে অস্বীকার করতে থাকে এবং আমার সঙ্গে খারাপ ব্যবহার করতে থাকে। যে এয়ার হোস্টেজের সঙ্গে আমার স্বামীর পরকীয়ার সম্পর্ক ছিল তার খোঁজ নেয়ারও চেষ্টা করেছি।

মিলা আরও লিখেন, আমি কেবল তার (পারভেজ সানজার) কাছ থেকে মানসিক নির্যাতন পেয়ে যাচ্ছিলাম। এ ছাড়া শারীরিক নির্যাতনের শিকার হয়েছি। একটা সময় উপলব্ধি করলাম যে আমি আর এ সব সহ্য করতে পারছি না। তাছাড়া আমাকে অনেক তরুণী রোল মডেল মানেন। এখন আমার ভাগ্য আমার নিজের হাতে নিতে হবে এবং এই খারাপ পরিস্থিতি থেকে বেরিয়ে আসতে হবে। আমাকে সাপোর্ট করার জন্য আমার পরিবার, ভক্ত ও শুভাকাঙ্খীদের অনেক ধন্যবাদ।

এদিকে সানজারিকে একজন সজ্জন ব্যাক্তি উল্লেখ করে তাঁর পক্ষে বলেছেন তাঁর সহকর্মীরা। তাঁকে একজন সফল বৈমানিক ও সৎ নিষ্ঠাবান বলে জানান তারা।

উল্লেখ্য, এ বছর ১২ মে আনুষ্ঠানিকভাবেই বিয়ে হয় মিলা ও বৈমানিক পারভেজ সানজারির। গত মাসে ডিভোর্স নিয়ে খবর বের হলেও তা গুজব বলে উড়িয়ে দেন মিলা। নারী নির্যাতন মামলায় পারভেজ সানজারিকে গত বৃহস্পতিবার গ্রেফতার করে পুলিশ। তিনি বর্তমানে কারাগারে আছেন।

সংবাদটি পঠিতঃ ৮৩ বার