বিএনপিকে ঠেকাতে আওয়ামী লীগের ইসলামী কার্ড
বুধবার ২২ নভেম্বর ২০১৭, ১১:১২:৫৮

প্রকাশিত : সোমবার, ২৯ মে ২০১৭ ১১:৫৫:৫৫ অপরাহ্ন Zoom In Zoom Out No icon

বিএনপিকে ঠেকাতে আওয়ামী লীগের ইসলামী কার্ড

রোমান কবির: 

কিছুদিন আগে ক্ষমতাসীণ আওয়ামী লীগ তাদের নির্বাচনী প্রচারণার অংশ হিসেবে ফেসবুকে একটি অ্যাপস বানায়-‘আস্থা রাখুন নৌকায়’। যা দুইদিনের মধ্যে ফেসবুকে ভাইরালও হয়। এর পাল্টা একটি অ্যাপস ভাইরাল হয় যাতে লেখা থাকে-‘আস্থা রাখুন আল্লাহর উপর’। মূলত আওয়ামী লীগ বিরোধী রাজনৈতিক দল বিএনপি ও জামায়াত সমর্থকরা এই অ্যাপস বানায় বলে সূত্রের প্রকাশ। শুধু এটিই নয় আওয়ামী লীগকে কাবু করতে বিরোধীরা সবসময় ইসলামী কার্ড ব্যবহার করে। এবার বিরোধীদের এই সুযোগ দিতে চায়না আওয়ামী লীগ। বিএনপি-জামায়াতসহ বিরোধীদের ঠেকাতে আওয়ামী লীগ এবার কৌশল নিয়েছে। পাল্টা ব্যবহার করছে ইসলামী কার্ড।

আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে রাজপথ ও নির্বাচনী মাঠ নিজেদের নিয়ন্ত্রণে রাখতে ইসলামপন্থি দলগুলোর সঙ্গে সুসম্পর্ক তৈরী করছে ক্ষমতাসীনরা। সম্প্রতি ইসলামী দল ও কিছু জ্যেষ্ঠ আলেমের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে সরকার কাওমি সনদ বাস্তবায়ন করেছে। সুপ্রিম কোর্ট থেকে ভাস্কর্য সরানোসহ তাদের সঙ্গে সদ্ভাব রাখছে। এর পাশাপাশি আনুষ্ঠানিকভাবে নিজেদের একটি ইসলামিক ফোরাম গঠনের প্রস্তাবও উঠেছে দলের মধ্যে।

দলের একাধিক সূত্রে জানা যায়, বিএনপি তাদের সামর্থ্যরে কথা চিন্তা করে একা রাজপথে নামবে না। সরকার চাচ্ছে কোনো গোষ্ঠীকে সামনে রেখে আগামী নির্বাচনের আগ পর্যন্ত যেন বিএনপি রাজপথে কোনো সুবিধা করতে না পারে। সেজন্য ইসলামপন্থি দলগুলোর সঙ্গে সরকার অনেকটা সদ্ভাব রেখে আগামী জাতীয় নির্বাচন পর্যন্ত পথ চলতে চায়। আওয়ামী লীগের উচ্চ পর্যায়ের এক নেতা বলেন, বিএনপি মামলা-হামলার ভয়ে এখন রাজপথে একা একা নামবে না। তবে অন্য কোনো গোষ্ঠীকে দিয়ে পরিস্থিতি ঘোলাটে করতে পারে। তাই এ সব বিষয়ে সরকারকে অনেকটা কৌশলী হতে হয়েছে।

এ ছাড়া বিগত দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সরকারের বড় মিত্র ছিল ভৌগোলিক রাজনীতিতে একে অন্যের প্রতিপক্ষ ভারত ও চীন। কিন্তু হাল-আমলে চীন-ভারতের সম্পর্ক খুব একটা ভালো যাচ্ছে না। চীনের ওয়ান বেল্ট ওয়ান রোড সম্মেলনে ভারত অংশ নেয়নি। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীও সেখানে তার প্রতিনিধি পাঠিয়েছেন। তবে চীনে না গেলেও সৌদি আরবের জোটে যোগ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। দৃশ্যত গত কয়েক বছরে সরকারের মিত্রতাও বাড়ছে সৌদি আরবের সঙ্গে। সৌদি বাদশাহর বিশেষ দূত এসে প্রধানমন্ত্রীকে আমন্ত্রণ জানিয়েছেন, যেটা তাদের দূতাবাসও করতে পারত। নির্বাচনের আগে ইসলাম অধ্যুষিত মধ্যপ্রাচ্যের কয়েকটি দেশের সরকারপ্রধান বাংলাদেশ সফর করতে পারেন। এর মধ্য দিয়ে মধ্যপ্রাচ্যে শ্রমিক রফতানিসহ অর্থনৈতিক অনেক সম্ভাবনার দ্বার যেমন উন্মুক্ত হবে, দেশের ইসলামী রাজনীতির কার্ডেও বড় ভাগ বসাবে আওয়ামী লীগ। ইতিমধ্যে মক্বা-মদিনার বেশ ক’জন বড় আলেমও বাংলাদেশ সফর করে গেছেন।

সবার অংশগ্রহণে আগামী নির্বাচন অনেক কঠিন হবে এ কথা দলের এমপিদের ইতিমধ্যে বলে দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ক্ষমতাসীন দলের সাধারণ সম্পাদকও বলেছেন, মাঠের রাজনীতিতে যাই হোক তৃণমূলে বিএনপির অনেক সমর্থন রয়েছে। জানা যায়, আওয়ামী লীগের নির্বাচনী প্রস্তুতির পুরোটাই বিএনপিকে ঘিরে। সারাদেশে উন্নয়নের যে বুকলেট দেয়া হয়েছে, সেখানেও বিএনপি আমলের সঙ্গে আওয়ামী লীগ আমলের উন্নয়নের পার্থক্যের চিত্র তুলে ধরা হয়েছে।

সংবাদটি পঠিতঃ ১৬১ বার