আজ মঙ্গলবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ০৬:০৬:৪৫

প্রকাশিত : বুধবার, ৩১ মে ২০১৭ ০৯:০৭:৫৭ অপরাহ্ন Zoom In Zoom Out No icon

কাবুলে গাড়িবোমা বিস্ফোরণে নিহত ৮০

মুক্তবাণী.কম

ডেস্ক রিপোর্ট: 

আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুলে প্রেসিডেন্টের বাসভবনের কাছে বিদেশি দূতাবাস এলাকায় বড় ধরনের একটি গাড়িবোমা বিস্ফোরণে অন্তত ৮০ জন নিহত হয়েছে।

বুধবার সকালের এ বিস্ফোরণে আরও ৩৫০ জনেরও বেশি মানুষ আহত হয়েছে বলে আফগানিস্তানের জনস্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাদের বরাতে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

সকালের ব্যস্ত সময়ে চালানো এ হামলায় হতাহতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে জানিয়েছেন তারা। বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত ছবিতে ভয়াবহ ওই বিস্ফোরণে ব্যাপক ধ্বংসযজ্ঞের চিত্র দেখা গেছে। বিস্ফোরণস্থলের আশপাশের বেশ কয়েকটি ভবন ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার পাশাপাশি রাস্তা ও রাস্তায় থাকা বহু গাড়ি ধ্বংসস্তূপে পরিণত হয়েছে।    

শক্তিশালী ওই বিস্ফোরণে পর রাজধানীর কেন্দ্রস্থলের জানবাক স্কয়ার এলাকাটি থেকে কালো ধোঁয়ার মেঘ উঠতে দেখা গিয়েছিল। এদিকে বোমা হামলায় প্রত্যক্ষদর্শীরা স্তব্ধ হয়ে পড়েন। কাবুলের কূটনৈতিক এলাকায় সংঘটিত হামলাটিকে ‘আত্মঘাতী’ বলে মনে করা হচ্ছে। 

নিজস্ব সূত্রের বরাত দিয়ে কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আলজাজিরা জানিয়েছে, বিস্ফোরকভর্তি ট্রাক ব্যবহার করে ওই হামলা হয়। 

পুলিশ এবং হাসপাতাল সূত্রে আলজাজিরা জানিয়েছে, হামলায় অন্তত ৮০ জন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন অন্তত ৩০০ জন। সূত্রের বরাত দিয়ে তারা আরও জানিয়েছে, আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুলের কেন্দ্রস্থল জানবাক স্কয়ারের ওই বিস্ফোরণকে ‘ইতিহাসের অন্যতম বড় হামলা' বলে মনে করা হচ্ছে।

নিহতদের অধিকাংশই বেসামরিক বলে পুলিশ ও হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে। বেনামি সূত্রের বরাত দিয়ে আলজাজিরা বলছে, বিস্ফোরকভর্তি ট্রাকে করে ওই হামলা চালানো হয়েছে এমন প্রাথমিক ধারণা নিয়েই তদন্তে নেমেছে পুলিশ।

স্থানীয় সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে, জার্মান দূতাবাসের খুব কাছাকাছই এ বিস্ফোরণ ঘটানো হয়। এতে বহু মানুষ হতাহত হয়েছেন। আফগানিস্তানের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ওয়াহিদ মাজরুহ জানান অনেকে গুরুতর আহত। নিহতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে জানান তিনি। 

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র নাজিব দানিস জানান, বিস্ফোরণ এতোটাই বড় ছিল যে, এতে ৩০টিরও বেশি গাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুলের 'সবচেয়ে নিরাপদ' এলাকা বলে পরিচিত ওয়াজির আকবর খান ডিসট্রিক্ট-এ ওই হামলা হয়। সেখানকার জানবাক স্কয়ারে বিভিন্ন রেস্টুরেন্টসহ বিভিন্ন ধরনের দোকান রয়েছে। একইসঙ্গে সরকারি দফতর আর বিদেশি দূতাবাসের কার্যালয়ের অবস্থানও আশপাশে। প্রায় ১০ ফিট উঁচু বিস্ফোরণ-প্রতিরোধী প্রাচীর দিয়ে ঘেরা সেই ভবনগুলি।

ফ্রান্সের ইউরোপীয় বিষয়ের ভারপ্রাপ্ত মন্ত্রী মারিয়েল দ্য সারনে বলেছেন, বিস্ফোরণে ফরাসি ও জার্মান দূতাবাসের ক্ষতি হয়েছে। তবে দূতাবাসর কর্মীদের অবস্থা সম্পর্কে এখনো কোনো খবর পাওয়া যায় নি। সেখানে প্রেসিডেন্টের প্রাসাদসহ আফগান সরকারের কয়েকটি মন্ত্রণালয়ের ভবনও রয়েছে।

সবচেয়ে ‘নিরাপদ' এলাকা হিসেবে পরিচিত ভারত যুক্তরাষ্ট্র ও ব্রিটেনের দূতাবাসও কাছাকাছি অবস্থিত। ন্যাটো মিশনও একই এলাকায়। ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ এক টুইটার পোস্টে জানিয়েছেন, ভারতীয় দূতাবাসের কর্মীদের কোনো ক্ষতি হয়নি।

এখনও কোনও জঙ্গিগোষ্ঠীর পক্ষে এই হামলার দায় স্বীকার করা হয়নি। তবে সম্প্রতি কাবুলে তালেবান এবং আইএস-এর নামে বেশকিছু হামলা সংঘটিত হয়েছে। চলতি মাসের প্রথমদিকে আইএস জঙ্গিরা ন্যাটো জোটের একটি সামরিক বহরে এক আত্মঘাতী বিস্ফোরণে অন্তত আটজন বেসামরিক নিহত হন।

সংবাদটি পঠিতঃ ১৯১ বার

সর্বশেষ খবর