মঙ্গলবার, ৩০ মে ২০১৭ ০১:৩৮:৩৩ পূর্বাহ্ন

২০ রোজার মধ্যেই উৎসব ভাতা পাবেন পোশাক শ্রমিকরা

নিজস্ব প্রতিবেদক: 

২০ রোজার মধ্যে তৈরি পোশাক খাতের সঙ্গে জড়িত শ্রমিকরা ইদুল ফিতরের বোনাস ভাতা পেয়ে যাবেন বলে জানিয়েছেন তৈরি পোশাকশিল্প মালিকদের সংগঠন বিজিএমইএর সহ-সভাপতি (অর্থ) মোহাম্মদ নাছির। 

সোমবার রাজধানীর কারওয়ান বাজারে কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তরের (ডিআইএফই) কার্যালয়ে তৈরি পোশাকশিল্পের ‘ক্রাইসিস ম্যানেজমেন্ট-বিষয়ক কোর কমিটির ৩৩তম সভা শেষে এ কথা জানান তিনি।

সভায় সভাপতিত্ব করেন শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী মুজিবুল হক চুন্নু। এ সময় উপস্থিত ছিলেন শ্রমসচিব মিকাইল শিপার, ডিআইএফইর মহাপরিদর্শক সামছুজ্জামান ভূঁইয়া, জাতীয় শ্রমিক লীগের সভাপতি শুক্কুর মাহামুদ, বাংলাদেশ জাতীয় গার্মেন্টস শ্রমিক কর্মচারী লীগের সভাপতি সিরাজুল ইসলাম রনি, গার্মেন্টস শ্রমিক কর্মচারী লীগের সভাপতি লীমা ফেরদৌস প্রমুখ।

বৈঠকে শ্রমিকনেতা লীমা ফেরদৌস বলেন, ‘অনেক পোশাক কারখানার মালিক এমন সময় বেতন-ভাতা দেন যে পোশাক শ্রমিকেরা না পারেন ঈদের জামা কিনতে, না পারেন বাসের টিকিট কাটতে। তাই তিনি পোশাক শ্রমিকদের ১৫ রোজার মধ্যে ঈদ বোনাস ও বকেয়া ওভারটাইম এবং ঈদের ছুটির আগেই জুন মাসের ২০ দিনের বেতন পরিশোধ করার দাবি জানাচ্ছি।’

এ বিষয়ে বিজিএমইএর সহ-সভাপতি মোহাম্মদ নাছির বলেন, ‘পোশাক শিল্পের অবস্থা খুবই নাজুক। গত ১০ বছরে আমাদের গড় প্রবৃদ্ধি ১৩ শতাংশ থাকলেও গত ১০ মাসে পোশাক রফতানিতে প্রবৃদ্ধি হয়েছে মাত্র ২ দশমিক ২১ শতাংশ। আমরা কিন্তু কঠিন সময় পার করছি। তারপরও শ্রমিকেরা যাতে উৎসবমুখর পরিবেশে ঈদ উদ্যাপন করতে পারেন, সে ব্যবস্থা আমরা নেব।’

মোহাম্মদ নাছির বলেন, ‘আমরা চেষ্টা করব প্রতিটি কারখানা যেন উৎসব ভাতা পরিশোধ করে।’ আর জুন মাসের বেতনের বিষয়ে তিনি বলেন, ‘মালিক-শ্রমিকের সম্পর্কের ভিত্তিতে ১০-১৫ দিনের মজুরি আমাদের মালিকেরা পরিশোধ করবেন। সেই প্রতিশ্রুতি আমরা দিতে পারি।’

পরে বৈঠক শেষে তিনি উপস্থিত সাংবাদিকদের বলেন, ‘২০ রোজার মধ্যেই শ্রমিকেরা বেতন-ভাতা পেয়ে যাবেন। সেটি নিশ্চিত করতে প্রতিবছরের মতো এবারও বিজিএমইএতে নিয়ন্ত্রণ কক্ষ খোলা হবে। আমরা বিষয়টি তদারকি করব।’

২৭০/১(৩য় তলা) ধানমন্ডি-১৫ (পুরাতন)৮/এ(নুতন),ধানমন্ডি,ঢাকা-১২০৯ ইমেইলঃ muktobani@gmail.com ,Skype: muktobani.com টেকনিকালঃ ০১৭৯৪১০০০০৯, নিউজ রুমঃ ০১৫৫২৬০১৮০৫ Developed by : PHP Boss